একসঙ্গে ২০টি শীতের পিঠার রেসিপি

পরবর্তী পর্বে আসছে আরও ৩২টি শীতের পিঠার রেসিপি

আগে অনেক ধরনের রেসিপি দেওয়া হলেও একসঙ্গে ২০টি শীতের পিঠার রেসিপি দেওয়া হয়নি। এবার আমাদের পাঠকদের জন্য দেওয়া হলো একসঙ্গে ২০টি শীতের পিঠার রেসিপি। দেখে নিন একসঙ্গে ২০টি শীতের পিঠার রেসিপি। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে। এর পরবর্তী পর্বে আরও ৩২টি শীতের পিঠার রেসিপি আসছে। দেখতে আমাদের সঙ্গেই থাকুন।

ডিমের ঝাল পোয়া পিঠা

১. ডিমের ঝাল পোয়া পিঠা

উপকরণ:

আতপ চালের গুঁড়া ১ কাপ
সেদ্ধ চালের গুঁড়া ১ কাপ
ময়দা আধা কাপ
ডিম ২টি
পেঁয়াজ মিহি কুচি সিকি কাপ
কাঁচামরিচ কুচি ২ চা চামচ
ধনেপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ
লবণ পরিমাণমতো
চিনি আধা চা চামচ
কুসুম গরম পানি পরিমাণমতো
বেকিং পাউডার আধা চা চামচ
তেল ভাজার জন্য

প্রণালী:

আতপ চাল ও সেদ্ধ চালের গুঁড়া, ময়দা, বেকিং পাউডার, চিনি একসঙ্গে খুব ভালো করে মিলিয়ে নিতে হবে।

পেঁয়াজ, কাঁচামরিচ, ধনেপাতা, লবণ একসঙ্গে ভালো করে চটকিয়ে ডিম দিয়ে মাখিয়ে ময়দার মিশ্রণে মেলাতে হবে।

একটু পানি দিয়ে গোলা করে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, গোলা যেন খুব পাতলা না হয়ে যায়।

তেল গরম করে সিকি কাপ পরিমাণ গোলা ছাড়তে হবে।

পিঠা ফুলে উঠলে উল্টিয়ে দিয়ে কাঠি দিয়ে পিঠার মাঝখানে ছিদ্র করে ভেতরের বাতাস বের করে দিতে হবে।

পিঠা ভাজা হলে চুলা থেকে নামিয়ে টমেটো সস অথবা গ্রিন চিলি সসের সঙ্গে পরিবেশন করা যায়।

লাল পোয়া পিঠা

২. লাল পোয়া পিঠা

উপকরণ:

আতপ চালের গুঁড়া ৩ কাপ,
মিহি করে বাটা নারকেল আধা কাপ,
ময়দা ১ টেবিল-চামচ,
বেকিং পাউডার আধা চা-চামচ,
খেজুরের গুঁড় বা রস মিষ্টি অনুযায়ী,
পানি পরিমাণমতো, ডিম ২টি,
এক চিমটি লবণ এবং তেল ১ কাপ।

প্রণালী:

তেল ছাড়া সবকিছু মিশিয়ে অন্তত ৩০ মিনিট রেখে দিতে হবে।

এবার তেল গরম হলে গোল চামচে গোলা নিয়ে একটা একটা করে ভেজে তুলতে হবে।

ছিটা রুটি

৩. ছিটা রুটি

উপকরণ:

চালের গুঁড়ো ২ কাপ,
পানি ২ কাপ,
লবণ আন্দাজমতো।

প্রণালী:

চালের গুঁড়োর মধ্যে পানি-লবণ দিয়ে গোলা তৈরি করে ১ ঘণ্টা রেখে দিতে হবে।

তাওয়ায় অল্প তেল মাখিয়ে ছিটিয়ে ছিটিয়ে গোল করে দিয়ে একটু পরে উঠিয়ে ভাঁজ করে রেখে গরম গরম পরিবেশন করতে হবে।

 

৪. কালাই রুটি

উপকরণ:

মাসকলাই ডাল ভাঙা ২৫০ গ্রাম,
আতপ চালের গুঁড়ি ১০০ গ্রাম,
লবণ পরিমাণমতো।

প্রণালী:

সব উপকরণ একসঙ্গে পরিমাণমতো পানি দিয়ে সঙ্গে রুটি বেলে মাটির খোলা অথবা মোটা তাওয়ায় ছেঁকে নিতে হবে।

 

৫. মালপোয়া

উপকরণ:

ময়দা ১ কাপ তেল,
দই আধা কাপ,
দুধ ২ লিটার,
গুড় বা চিনি ১ কাপ
এলাচের গুঁড়া সিকি চা চামচ।

প্রণালী:

ময়দার সঙ্গে দই দিয়ে ফেটে অল্প পানি দিয়ে ঘন গোলা তৈরি করতে হবে।

দুধ জ্বাল দিয়ে চিনি মিলিয়ে ঘন করে নামিয়ে রাখতে হবে এবং ওপরে এলাচের গুঁড়া ছড়িয়ে দিতে হবে।

ময়দার গোলা গোল চামচে করে গরম তেলে ছেড়ে ভাজতে হবে।

হালকা রং ধরলে নামিয়ে দুধে ছাড়তে হবে।

 

৬. খেঁজুর রসে মালপোয়া

উপকরণ:

খেজুর রস ১ কেজি,
ময়দা ২৫০ গ্রাম,
ক্ষীর ১ কাপ,
খাবার সোডা ১ চিমটি,
মৌরি আধা চামচ,
লবণ স্বাদমতো,
ঘি ২৫০ গ্রাম।

প্রণালী:

রস জাল দিয়ে ঘন করে নিয়ে ময়দা, ক্ষীর, মৌরি, খাবার সোডা, লবণ ও পানি দিয়ে ঘন গোলা তৈরি করতে হবে।

চুলার হাড়িতে দেওয়া ঘি গরম হলে পিঠা ভেজে গরম গরম খেজুর রসে চুবিয়ে দিতে হবে।

৭. দই-মালপোয়া

উপকরণ:

আতপ চালের গুঁড়া ৩ কাপ
ময়দা ১ কাপ
খেজুরের গুড় ১ কাপ,
তরল দুধ ২ কাপ
মিষ্টি দই ২ কাপ
গোলাপজল ৩-৪ ফোটা
তেল ভাজার জন্য,

প্রণালী:

কুসুম গরম দুধে চালের গুঁড়া, ময়দা, গুড় দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করতে হবে।

তবে মিশ্রণ যেন বেশি পাতলা বা ঘন না হয়।

কড়াইয়ে পরিমাণমতো তেল দিয়ে এক হাতা করে মিশ্রণ দিয়ে বাদামি করে পিঠা ভেজে তুলে রাখতে হবে।

তারপর গোলাপজল দিয়ে মিষ্টি দই ফেটে তার মধ্যে মালপোয়াগুলো দিয়ে কিছুক্ষণ রাখতে হবে।

৮. রসবড়া

উপকরণ:

কলাইয়ের ডাল ১ কাপ,
চালের গুঁড়া আধা কাপ,
নারকেল কোরানো ১ কাপ,
চিনি ১ কাপ,
২টি এলাচ গুঁড়া,
ভাজার জন্য তেল।

শিরার জন্য:
চিনি ১ কাপ,
পানি ১ কাপ।
জ্বাল দিয়ে শিরা তৈরি করে নিতে হবে।

প্রণালী:
পুরের জন্য:

নারকেল ও চিনি জ্বাল দিয়ে পুর বানাতে হবে।

ডাল সারা রাত ভিজিয়ে রাখতে হবে। সেদ্ধ করে বেটে নিতে হবে।

চালের গুঁড়া সেদ্ধ করে ডালবাটার সঙ্গে মিলিয়ে খুব ভালো করে মাখাতে হবে।

হাতে ১ টেবিল চামচ ঘি নিয়ে এর সঙ্গে মাখিয়ে রেখে দিতে হবে।

গোল গোল করে বড়ার মতো বানিয়ে মাঝখানে পুর ভরে ডুবো তেলে ভেজে শিরায় দিয়ে দু-তিন ঘণ্টা রেখে দিতে হবে।

৯. রসের ক্ষীর

উপকরণ:

আতপ চাল ১ কেজি,
খেজুর রস ৫ কেজি,
এলাচ-৬/৭টি,
কিশমিশ আধাকাপ।

প্রণালী:

আতপ চাল ১ ঘণ্টা আগে ধুয়ে ভিজিয়ে রাখুন।

হাতে কচলিয়ে চালটা একটু ভাঙা ভাঙা করে নিন।

এবার খেজুর রসসহ সব উপকরণ চুলায় বসিয়ে মাঝারি আঁচে রান্না করুন।

ঘন হয়ে চাল ফুটে গেলে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন।

১০. কাউনের পায়েস

উপকরণ:

কাউনের চাল ১ কাপ,
লিকুইড দুধ ২ কেজি,
গুঁড়া দুধ আধা কাপ,
চিনি আধা কাপ,
খেজুরের গুড় ১/৪ কাপ,
আস্ত এলাচ ও দারুচিনি ৩/৪টি করে,
কিসমিস,
পেস্তাবাদাম কুচি।

প্রণালী:

কাউনের চাল ভালো করে ধুয়ে ২০ মিনিট ভিজিয়ে রাখতে হবে।

২ কেজি দুধ জ্বাল দিয়ে ১ কেজি করতে হবে।

চাল ও গুঁড়াদুধ, আস্ত এলাচ-দারুচিনি দিয়ে জ্বাল দিতে হবে।

চাল ফুটে এলে চিনি দিতে হবে, নামানোর আগে খেজুরের গুড় গ্রেট করে মেশাতে হবে।

গরম অবস্থায় বাটিতে ঢেলে কিছু বাদাম দিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

১১. কাউনের পায়েসের পাটিসাপটা

উপকরণ:

চালের গুড়া ২ কাপ,
ময়দা আধা কাপ,
লবণ পরিমাণমত,
চিনি আধা কাপ,
কর্নফ্লাওয়ার ২ টেবিল চামচ,
পানি পরিমাণমত,
কাউনের পায়েস ১ কাপ।

প্রণালী:

চালের গুঁড়া, ময়দা, চিনি, লবণ, পানি দিয়ে ঘন করে গোলা করে আধা ঘণ্টা রেখে দিতে হবে।

এবার একটি ননস্টিক ফ্রাইপ্যানে হালকা তেল ব্রাশ করে সামান্য গোলা দিয়ে ছড়িয়ে মাঝে কাউনের পায়েস দিয়ে ভাঁজ দিতে হবে।

১২. নতুন গুড়ের ফিরনি

উপকরণ:

দুধ ১ লিটার,
পানি ১ কাপ,
পোলাওয়ের চাল ১ মুঠ (২ ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রেখে পানি ঝরিয়ে আধা ভাঙা করে নিতে হবে),
গুড় (কুচি কুচি করে নেওয়া) আধা কাপ,
মাওয়া আধা কাপ (নামানোর আগে),
নারকেল কুড়ানো আধা কাপ,
বাদাম সাজানোর জন্য।

প্রণালী:

দুধ ও পানি জ্বাল দিয়ে নিন। বলক এলে অল্প অল্প করে চাল দিয়ে নেড়ে নেড়ে মিলিয়ে নিতে হবে।

চাল ও দুধের মিশ্রণ যেন দলা না হয়। এবার এতে নারকেল মিশিয়ে অল্প আঁচে নেড়ে নেড়ে চাল সেদ্ধ করে নিতে হবে।

সেদ্ধ হয়ে এলে ১ টেবিল-চামচ চিনি দিয়ে জ্বাল করে গুড় মেলাতে হবে।

গুড় মিলিয়ে নেড়ে নেড়ে ঘন হয়ে এলে মাওয়া মিশিয়ে নামাতে হবে।

১৩. ফুল পিঠা

উপকরণ:

চালের গুঁড়া ২ কাপ,
লবণ ১ চা চামচ,
সয়াবিন তেল ৬ কাপ,
মুগ বা মাসকলাই ডাল ১ কাপ,
ময়দা ২ কাপ,
গরম পানি ৩ কাপ,
জর্দার রং ১/২ চা চামচ,
চিনি ১/২ কাপ।

প্রণালী:

মাসকলাই বা মুগডাল আগে সারা রাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে নরম হলে পাটাতে পিষে নিতে হবে।

এবার চুলায় হাড়িতে পানি গরম করতে হবে। পানি ফুটে উঠলে তাতে একে একে ময়দা, চালের গুঁড়া ও ডাল বাটা দিয়ে সিদ্ধ করে নিতে হবে।

ঠান্ডা হলে জর্দার রং দিয়ে ভালো করে মেখে ময়দার ডো’টি মোটা করে রুটি বেলে একটি গোল ছাঁচ দিয়ে কাটতে হবে।

এবার কাটা চামচ বা টুথপিক দিয়ে নকশা করে তেলে একটি একটি করে পিঠা ভেজে তুলতে হবে।

গরম অবস্থায় উপরে চিনি ছিটিয়ে দিতে হবে।

১৪. রাবড়ি

উপকরণ ও প্রণালী:

কেসর এক চা চামচ গরম দুধে মিশিয়ে রেখে পেস্তা খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট ছিলকা কেটে নিতে হবে।

এলাচ গুঁড়োর সঙ্গে পেস্তা মিশিয়ে একটা ডেকচিতে দুধ ভাল করে গরম করতে হবে।

ফুটতে শুরু করলে আঁচ কমিয়ে ঘন করে নিয়ে দুধের মধ্যে চিনি, এলাচ-পেস্তা মিশ্রণ, কেসর দিয়ে আরও ৩ থেকে ৪ মিনিট ভাল করে ফুটিয়ে নিয়ে আগুন থেকে নামিয়ে ঠান্ডা করে ফ্রিজে ২ ঘণ্টা রেখে জমিয়ে নিতে হয়।

১৫. কাটা পিঠা

উপকরণ:

চালের গুড়ো ২কাপ,
আধ চা-চামচ লবন,
কাই/ সিদ্ধ করার জন্য পানি পরিমান মতো।

প্রণালী:

চালের গুড়ো রুটির আটা যেভাবে সিদ্ধ করে সেভাবে সিদ্ধ করে ঠান্ডা হলে ভালো ভাবে মেখে ছোট ছোট পিঠা বানাতে হবে।

কোল বালিসের আকৃতিরও বানালে কাটতে সুবিধা হয়।

বানানো হয়ে গেলে একটি হাড়িতে অর্ধেক পানি দিয়ে চুলায় বসিয়ে স্টিলের ঝাঝরিতে পিঠাগুলো রেখে একটি প্লেট বা ঢাকনি দিয়ে ঢেকে ঐ গরম পানির হাড়ির উপর ১০ মিনিট পর বসিয়ে নামাতে হবে।

গরম গরম পিঠা আপনি মাংসের ঝোল বা ঝোলা গুড় দিয়ে খাওয়া যায়।

১৬. আমের ঝালপিঠা

উপকরণ:

পাকা আমের ক্বাথ ১ কাপ,
চালের গুড়া ১ কাপ,
ডিম ১টা,
ভাজা মরিচ গুড়া আধা চা-চামচ,
ভাজা জিরা গুড়া আধা চা-চামচ,
কাঁচামরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ,
ময়দা আধাকাপ,
পানি আধা কাপ,
চিনি ৩ টেবিল চামচ।

প্রণালী:

ওপরের সব উপকরণ একসঙ্গে ভেজে ডুবো তেলে গোল গোল পিঠা করে ভাজতে হবে।

১৭. ঝিনুক পিঠা

উপকরণ:

চালের গুঁড়া ১ কাপ,
তালের গোলা ১ কাপ,
পানি আধা কাপ,
তেল ভাজার জন্য আধা কাপ,
চিনি ১ কাপ,
পানি ১ কাপ।

প্রণালী:

তালের গোলা পানি মিশিয়ে জ্বাল দিতে হবে। ফুটে উঠলে চালের গোলা দিতে হবে।

কাই করে নিয়ে পরিমাণমতো গোলা নিয়ে হাতের তালুতে ডলে লম্বা করে প্লাস্টিকের ঝুড়িতে চেপে দাগ বসিয়ে নিয়ে মচমচে করে তেলে ভাজতে হবে।

চিনি ও পানি জ্বাল দিয়ে সিরা করে পিঠাগুলো তেল থেকে তুলে সিরায় দিতে হবে।

১৮. তালের রসবড়া

উপকরণ:

তালের কাঁদ ঘন-১ কাপ,
ময়দা-১/৪ কাপ,
চিনি-২ কাপ,
গোলাপজল-১ চা. চামচ,
বেকিং পাউডার-২ চা. চা.,
লবণ-সামান্য,
দুধ- ১ কাপ,
ঘি-২ চা. চা.,
চালের গুঁড়া-১/২ কাপ,
সয়াবিন তেল-পরিমাণমতো।

প্রণালী:

দেড় কাপ চিনি ও পানি দিয়ে সিরা তৈরি করে নিতে হবে।

এরপর তালের কাঁদ ময়দা, ১/২ কাপ চিনি, গোলাপজল, বেকিং পাউডার, লবণ, দুধ, ঘি, চালের গুঁড়া ও পরিমাণমতো পানি দিয়ে গোলা তৈরি করে মালপোয়া আকারে ডুবো তেলে ভাজতে হবে।

ভাজা হয়ে গেলে সঙ্গে সঙ্গে সিরায় দিয়ে পরিবেশন করুন।

১৯. তালের পাটিসাপটা

উপকরণ:

তালের গোলা ১ কাপ,
ময়দা আধা কাপ,
চালের গুঁড়া ২ টেবিল চামচ,
চিনি ২ টেবিল চামচ,
ডিম ১টি

পুর:
কোরানো নারকেল ১ কাপ,
দুধের ক্ষীর আধা কাপ,
চিনি আধা কাপ জ্বাল দিয়ে পুর তৈরি করে নিতে হবে।

প্রণালী:

পাকাতালের গোলার সঙ্গে বাকি সব উপকরণ মিলিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিতে হবে।

এবার তাওয়াতে সামান্য ঘি লাগিয়ে হাতলে করে গোলা দিয়ে তাওয়া ঘুরিয়ে রুটি তৈরি করতে হবে।

ওপরটা শুকিয়ে এলে পুর দিয়ে পাটির মতো রোল করে পিঠা তৈরি করতে হবে।

২০. তালের রুটি

উপকরণ:

ঘন তাল ২ কাপ,
নারকেল কোরানো ১ কাপ,
আটা ২ কাপ,
গুড় ১ কাপ,
লবণ ১ চা-চামচ,
গুঁড়া দুধ আধা কাপ,
ঘি ২ টেবিল-চামচ।

প্রণালী:

ওপরের সব উপকরণ একসঙ্গে মাখিয়ে খামির বানাতে হবে।

এবার কলাপাতায় ঘি বা তেল মাখিয়ে রুটির মতো বিছিয়ে দিতে হবে।

আরও একটি কলাপাতা দিয়ে রুটি ঢেকে দিতে হবে।

পাতাসহ রুটি গরম তাওয়ায় দিয়ে ঢেকে দিতে হবে।

অল্প আঁচে পাতা পোড়া পোড়া হওয়া পর্যন্ত ছেঁকে নিতে হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button